৬৫ বছর আগে মহল্লার মঞ্চে নাটক করতে গিয়ে শুরু। এরপর সারাজীবনই কেটে গেল সেই নাটক নিয়ে। স্বাধীনতা-উত্তর বাংলাদেশ গ্রুপ থিয়েটার চর্চা ও তার আরো অনেক পরে টিভি নাটক ও চলচ্চিত্রে দাপিয়ে বেড়ানো অভিনেতা আবুল হায়াত পদার্পণ করলেন ৭৬ বছরে।

গতকাল রবিবার সন্ধ্যায় রাজধানীর শিল্পকলা একাডেমির জাতীয় সংগীত, নৃত্যকলা ও আবৃত্তি ভবনের মিলনায়তনে তার ‘পঞ্চসপ্ততি’র আয়োজন করেন তার সহ ও অনুজ অভিনেতারা।

জন্মদিনের আয়োজনে এসে আবুল হায়াত বলেন, ‘মাত্র পাঁচ বছর বয়সে মায়ের হাত ধরে অমলেন্দু বিশ্বাসের নাটক দেখতে গিয়েছিলাম। কী দাপিয়ে বেড়াতেন মঞ্চে ! সেই পোকা মাথায় ঢুকে গেল, আমি তো অভিনয় করব। সে পোকা মাথায় আছে আজ অবধি। আজও রাক্ষসের মতো বংশবৃদ্ধি করে চলেছে।’

বুয়েটে পুরকৌশলে পড়াশোনা শেষ করে প্রথমে ওয়াসা, পরে আন্তর্জাতিক সংস্থার পরামর্শক হিসেবে তিনি লিবিয়া ও লাউসেও দীর্ঘদিন কাজ করে এসেছেন।

শিল্পকলার মঞ্চে দাঁড়িয়ে প্রবীণ এ অভিনেতা বলেন, ‘আই ওয়ান্ট টু ডাই অন স্টেজ। এখান থেকে সৃষ্টিকর্তা ছাড়া কেউ আমাকে সরাতে পারবে না। আমি অভিনয়কে কখনো ছাড়তে পারব না।’

স্ত্রী মাহফুজা খাতুন শিরিনের সঙ্গে এ অনুষ্ঠানে এসেছিলেন তার দুই মেয়ে বিপাশা হায়াত, নাতাশা হায়াত। নাতি-নাতনিদের সঙ্গে এসেছিলেন দুই জামাতা তৌকির আহমেদ ও শাহেদ শরীফ খান।

তাকে নিয়ে কথা বলেন আতাউর রহমান, মামুনুর রশীদ, দিলারা জামান, ডলি জহুর, জাহিদ হাসান, ওয়াহিদা মল্লিক জলি, জয়ন্ত চট্টোপাধ্যায়, খায়রুল আলম সবুজ, নওয়াজিশ আলী খান, অধ্যাপক আবদুস সেলিম, ইনামুল হক, মুনিরা ইউসুফ মেমী।